Skip to Content

Saturday, August 18th, 2018
একাদশ সংসদ নির্বাচন: ২০০ আসনে আ.লীগের মনোনয়ন লড়াইয়ে যারা

একাদশ সংসদ নির্বাচন: ২০০ আসনে আ.লীগের মনোনয়ন লড়াইয়ে যারা

Be First!
by October 28, 2017 রাজনীতি

নোনয়ন লড়াইয়ে আওয়ামী লীগের মুখোমুখি আওয়ামী লীগ। জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রায় দেড় বছর বাকি থাকতেই

২ শতাধিক আসনে মনোনয়ন লড়াইয়ে আওয়ামী লীগ নেতারা ব্যাপক শো-ডাউন, জনসংযোগ, কর্মীসভা, প্রচার, প্রচারণার যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন।

মাঠ পর্যায়েই নিজেদের মনোনয়ন যুদ্ধের লড়াই সীমিত রাখছেন না, কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গেও জোর লবিং শুরু করেছেন।

আগামী জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগ বর্তমান এমপিদের মধ্য থেকে শতাধিক প্রার্থীকে নতুন করে মনোনয়ন দিচ্ছে না— এই খবর ছড়িয়ে পড়ায় একেক আসনে ২ থেকে ৫ জন, কোথাও বা তারও অধিক মনোনয়ন প্রত্যাশী মাঠে নেমেছেন।

কোথাও কোথাও পাল্টাপাল্টি সভা-সমাবেশ চলছে। অনেক জায়গায় নিজেরাই নিজেদেরকে নিজ নিজ আসনে আগামী দিনের দলীয় প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা করছেন।

সিলেট সদরে বর্তমান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত একবার বলছেন অবসরে যাবেন, আর নির্বাচন নয়। কখনো বলছেন, আগামীতেও প্রার্থী হবেন। অনেকে জানেন, তার ছোট ভাই ড. আবুল মোমেনকে মূলত তিনি প্রার্থী করতে চান। কিন্তু আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাড. মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ এবার মনোনয়ন লাভের জন্য জোরেশোরে মাঠে নেমেছেন।

মনোনয়ন চান যারা:
সিলেট-২ (বিশ্বনাথ): জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ শফিকুর রহমান চৌধুরী, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতা আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

সিলেট-৩ (সুরমা-ফেঞ্চুগঞ্জ): বর্তমান সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মাহমুদুস সামাদ চৌধুরী কয়েস, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের ত্রাণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব মরণ কামড় দিয়েছেন।

সিলেট-৪ (কোম্পানীগঞ্জ-গোয়াইনঘাট-জৈন্তাপুর): বর্তমান সাংসদ ও গোয়াইনঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা ইমরান আহমেদ চৌধুরী, অধ্যক্ষ ফজলুল হক, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ নেতা ফারুক আহমদ।

সিলেট-৫ (কানাইঘাট-জকিগঞ্জ): জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সিলেট সিটি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিনের ভাই মাসুক উদ্দিন, সাবেক এমপি হাফিজ মজুমদার, অর্থমন্ত্রীর আত্মীয় ড. আহমদ আল কবির।

সিলেট-৬ (বিয়ানীবাজার-গোলাপগঞ্জ): শিক্ষামন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদের আসনে কানাডা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সারোয়ার হোসেন ব্যাপক জনসংযোগে নেমেছেন।

সুনামগঞ্জ-১ (ধর্মপাশা-জামালগঞ্জ-তাহিরপুর): বর্তমান সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, সাবেক সংসদ সদস্য সৈয়দ রফিকুল হক, সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি এ্যাড. আখতারুজ্জামান সেলিম, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. রঞ্জিত সরকার, বাংলাদেশ আওয়ামী কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা অ্যাডভোকেট শামীমা শাহারিয়ার।

সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা): প্রয়াত জাতীয় নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের সহধর্মিণী ড. জয়া সেনগুপ্তা এমপি, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট শামসুল ইসলাম।

সুনামগঞ্জ-৩ (দক্ষিণ সুনামগঞ্জ-জগন্নাথপুর): অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রয়াত জাতীয় নেতা মরহুম আব্দুস সামাদ আজাদের ছেলে আজিজুস সামাদ আজাদ ডন ও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক মনোনয়ন লড়াইয়ে অবতীর্ণ।

সুনামগঞ্জ-৪ (সুনামগঞ্জ সদর-বিশম্ভরপুর): সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মতিউর রহমান ঘোষণা দিয়ে কর্মীসভা করে মাঠে নেমেছেন। তার আগে কর্মীসভা করে প্রার্থীতা ঘোষণা করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এনামুল কবীর ইমন, সুনামগঞ্জ পৌর মেয়র আইয়ুব বখত জগলুল।

সুনামগঞ্জ-৫ (ছাতক-দোয়ারাবাজার): বর্তমান সংসদ সদস্য মহিবুর রহমান মানিক ও ছাতক উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য শামীম আহমদ চৌধুরী।

হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল): নবীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আলমগীর চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সুলতান মাহমুদ, সংরক্ষিত আসনের এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী।

হবিগঞ্জ-২ (আজমিরীগঞ্জ-বানিয়াচং): জেলা আওয়াম লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুল মজিদ খান এমপি, বানিয়াচং উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আমির হোসেন মাস্টার।

হবিগঞ্জ-৪ (চুনারুঘাট-মাধবপুর): অ্যাডভোকেট মাহবুব আলী এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, সাবেক সমাজকল্যাণমন্ত্রী এনামূল হক মোস্তফা শহীদের ছেলে নিজামুল হক রানা।

মৌলভীবাজার-২ (কুলাউড়া-কমলগঞ্জ): বর্তমান এমপি আব্দুল মতিন, পুলিশের সাবেক এআইজি বজলুল করিম।

পঞ্চগড়-১ (পঞ্চগড়-তেঁতুলিয়া-আটোয়ারী উপজেলা): সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোজাহারুল হক প্রধান। তিনি বর্তমান সংসদ সদস্য জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (আম্বিয়া) সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধানের ভাতিজা।

ঠাকুরগাঁও-১ (সদর): দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন এমপি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক কোরাইশী, উপজেলা সভাপতি অরুণাংশ দত্ত টিটো।

ঠাকুরগাঁও-২ (বালিয়াডাঙ্গী-হরিপুর): জেলা সভাপতি দবিরুল ইসলাম এমপি, তার ছেলে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম সুজন, তার মেঝো ভাই বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোহাম্মদ আলী, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. মোস্তাক আলম টুলু, হরিপুর উপজেলা সাবেক চেয়ারম্যান ফেরদোউস শামীম টগর, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রবীর কুমার রায়।

দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল): বর্তমান সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল, বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম ও বীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. জাকারিয়া জাকা।

দিনাজপুর-৪ (খানসামা-চিরিরবন্দর): পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী এমপি, সাবেক হুইপ মিজানুর রহমান মানু।

দিনাজপুর-৬ (বিরামপুর-হাকিমপুর-নবাবগঞ্জ-ঘোড়াঘাট): শিবলী সাদিক এমপি, সাবেক এমপি আজিজুল হক চৌধুরী, নবাবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান।

নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা): বর্তমান সংসদ সদস্য ও ডিমলা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহম্মেদ, সাবেক সাংসদ ড. হামিদা বানু শোভা, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক সরকার ফারহানা আক্তার সুমি, সুপ্রিম কোর্টের সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাড. মনোয়ার হোসেন, মেজর (অব.) তসলিম উদ্দিন।

নীলফামারী-২ (সদর): একক প্রার্থী সংস্কৃতিবিষয়কমন্ত্রী ও বর্তমান সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নূর।

নীলফামারী-৩ (জলঢাকা-আংশিক কিশোরগঞ্জ): জলঢাকা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যাপক গোলাম মোস্তফা এমপি, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি দিপু বাবু, জলঢাকা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলী মিন্টু, জলঢাকা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সহিদ হোসেন রুবেল, সাবেক পৌরসভার মেয়র ও পৌর কৃষকলীগের সদস্য ইলিয়াস হোসেন বাবলু।

নীলফামারী-৪ (সৈয়দপুর-আংশিক কিশোরগঞ্জ): নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান নীলফামারী পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহম্মেদ, সৈয়দপুর উপজেলা চেয়ারম্যান মোকছেদুল মোমিন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক নাফিউল করিম নাফা, আওয়ামী লীগ সদস্য ব্যারিস্টার মোকছেদুল ইমলাম, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বর্তমানে আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির সদস্য আমেনা কোহিনুর আলম, আওয়ামী কর আইনজীবী পরিষদের প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আমির উল ইসলাম আমির, আওয়ামী লীগ সদস্য অধ্যাপক সাখাওয়াত হোসেন খোকন, প্রকৌশলী সেকেন্দার আলী, জাতীয় মহিলা সংস্থার নীলফামারী জেলা শাখার চেয়ারম্যান ও মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী রাবেয়া আলীম।

লালমনিরহাট-১ (পাটগ্রাম-হাতীবান্ধা): লালমনিরহাট জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোতাহার হোসেন এমপি, পাটগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমীন বাবুল, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য মকবুল হোসেন, হাতীবান্ধা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক বদিউজ্জামান ভেলু।

লালমনিরহাট-২ (আদিতমারী-কালীগঞ্জ) সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ও কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি নুরুজ্জামান আহমেদ এমপি, কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য গোলাম মূর্তজা হানিফ।

লালমনিরহাট-৩ (সদর): সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ইঞ্জি. আবু সালেহ মো. সাঈদ দুলাল এমপি, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংরক্ষিত আসনের এমপি অ্যাড.সফুরা বেগম রুমি, আওয়ামী লীগ সমর্থক হামিদুল ইসলাম মন্টু।

রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া): গঙ্গাচড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক আলহাজ রুহুল আমিন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান বাবলু।

রংপুর-২ (বদরগঞ্জ-তারাগঞ্জ): বদরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক, বদরগঞ্জ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক টুটুল চৌধুরী এবং বাংলাদেশ কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষিবিদ বিশ্বনাথ সরকার বিটু।

রংপুর-৩ (সদর): রংপুর জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক ও ক্রিকেট বোর্ডর পরিচালক অ্যাড. আনোয়ারুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা চৌধুরী খালেকুজ্জামান।

রংপুর-৪ (কাউনিয়া-পীরগাছা): দলের কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পদক টিপু মুন্সি এমপি, কাউনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম মায়া।

রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর): স্বেচ্ছাসেবকলীগের উপজেলা সভাপতি প্রভাষক একেএম রুহুল উল্লাহ জুয়েল, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি খাজা নুর খাজা।

রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ): প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, প্রধানমন্ত্রী-পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়, সাবেক এমপি আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর হোসেন চৌধুরী ও মোতাব্বেরুল ইসলাম হক বাবলু।

কুড়িগ্রাম-১ (নাগেশ্বরী-ভুরুঙ্গামারী) আওয়ামী লীগের জেলা সহ-সভাপতি গোলাম মোস্তফা, নাগেশ্বরী উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আসলাম হোসেন সওদাগর, ভুরুঙ্গামারী উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলা সাধারণ সম্পাদক নুরুন্নবী চৌধুরী খোকন।

কুড়িগ্রাম-২ (কুড়িগ্রাম সদর-ফুলবাড়ী): জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাফর আলী, জেলা সহ-সাধারণ সম্পাদক ও কুড়িগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান আমান উদ্দিন মনজু, পৌর মেয়র ও সদর উপজেলা সাবেক সভাপতি আব্দুল জলিল, জেলা যুগ্ম সম্পাদক আব্রাহাম লিংকন, জেলা তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ছানা লাল বকসি।

কুড়িগ্রাম-৩ (উলিপুর): চিলমারী উপজেলা সভাপতি ও চিলমারী উপজেলা চেয়ারম্যান শওকত আলী বীরবিক্রম, উপজেলা সভাপতি মতি শিউলি, সাবেক এমপি ও সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য আমজাদ হোসেন তালুকদার।

কুড়িগ্রাম-৪ (রৌমারী-রাজিবপুর-চিলমারী): রৌমারী উপজেলা চেয়ারম্যান ও রৌমারী উপজেলা সাধারণ সম্পাদক মজিবর রহমান বঙ্গবাসী, সাবেক এমপি ও রৌমারী উপজেলা সভাপতি জাকির হোসেন, রৌমারী উপজেলা যুগ্ম সম্পাদক ও রৌমারী সদর ইউপি চেয়ারম্যান সফিকুল ইসলাম সালু।

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ): বর্তমান সাংসদ গোলাম মোস্তফা আহমেদ, পৌর মেয়র আবদুল্লাহ আল মামুন, দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত সাবেক সাংসদ মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের স্ত্রী খুরশিদ জাহান স্মৃতি, লিটনের বড় বোন আফরোজা বারী।

গাইবান্ধা-২ (সদর): বর্তমান সাংসদ মাহাবুব আরা বেগম গিনি, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাড. সৈয়দ শামস উল আলম হিরু, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক, জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি ফরহাদ আবদুল্লাহ হারুন বাবলু।

গাইবান্ধা-৩ (সাদুল্যাপুর-পলাশবাড়ী): বর্তমান এমপি ডা. ইউনুস আলী সরকার, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ উম্মে কুলসুম স্মৃতি, সাদুল্যাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক শাহারিয়ার খান বিপ্লব, সাবেক পলাশবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান মোখছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ, ব্রিগেডিয়ার (অব.) মো. মাহমুদুল হক।

গাইবান্ধা-৪ (গোবিন্দগঞ্জ): বর্তমান এমপি অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ, সাবেক সাংসদ প্রকৌশলী মো. মনোয়ার হোসেন চৌধুরী, পৌর মেয়র আতাউর রহমান সরকার, উপজেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল লতিফ প্রধান এবং কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের পাট ও বস্ত্র বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ নাজমুল ইসলাম লিটন।

গাইবান্ধা-৫ (ফুলছড়ি-সাঘাটা): জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাড. ফজলে রাব্বী মিয়া এমপি, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমুদুল হাসান রিপন।

রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী): বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা ও সাবেক অতিরিক্ত আইজিপি মতিউর রহমান, তানোর উপজেলার আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মুণ্ডুমালা পৌরসভার মেয়র গোলাম রাব্বানী, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মকবুল হোসেন খান।

রাজশাহী-২ (রাসিক): আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, নগরের সভাপতি ও রাসিকের সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, বর্তমান সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আক্তার জাহান, সাবেক প্রতিমন্ত্রী জিনাতুন নেছা তালুকদার, রাবির সাবেক উপাচার্য ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য প্রফেসর আব্দুল খালেক এবং আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য ও মহানগরের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল।

রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর): বর্তমান সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন, সাবেক সাংসদ মেরাজ উদ্দিন মোল্লা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ, জেলার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মানজাল।

রাজশাহী-৪ (বাগমারা): বর্তমান সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান জাকিরুল ইসলাম সান্টু, তাহেরপুর পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ।

রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর): বর্তমান সাংসদ আব্দুল ওয়াদুদ দারা, সাবেক সাংসদ তাজুল ইসলাম মোহাম্মাদ ফারুক, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান-উল হক মাসুদ।

রাজশাহী-৬ (বাঘা-চারঘাট): বর্তমান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপি, সাবেক সাংসদ রায়হানুল হক রায়হান, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক লায়েব উদ্দিন লাভলু ও বাঘা পৌরসভার মেয়র আক্কাস আলী।

নাটোর-১ (লালপুর ও বাগাতিপাড়া): জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবুল কালাম এমপি, সহ-সভাপতি মাজেদুর রহমান চাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বকুল, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আতিকুল হক আতিক, আওয়ামী সাংস্কৃতিক লীগের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি লে. কর্ণেল (অব.) মোহাম্মদ রমজান, আওয়ামী লীগ নেতা শামীম আহমেদ সাগর, সিলভিয়া পারভীন লেনি।

নাটোর-২ (সদর): জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শিমুল এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আহাদ আলী সরকার, নাটোর পৌর মেয়র ও জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি উমা চৌধুরী জলি, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রমজান, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মালেক শেখ, জেলা যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বাসিরুর রহমান খান এহিয়া।

নাটোর-৩ (সিংড়া): বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জুনায়েদ আহমেদ পলক এমপি, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক সহ-সভাপতি শামসুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সুশান্ত কুমার ঘোষ।

নাটোর-৪ (গুরুদাসপুর ও বড়াইগ্রাম): চারবারের সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস এমপি, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আহমদ হোসেন, বড়াইগ্রাম উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারি, গুরুদাসপুর পৌর মেয়র ও গুরুদাসপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহনেওয়াজ আলী, কেন্দ্রীয় যুব মহিলা লীগের যুগ্ম-সম্পাদক কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি, সাবেক ছাত্রনেতা আহমদ আলী মোল্লা (আহমেদ হোসেন)।

পাবনা-১ (সাঁথিয়া-বেড়ার আংশিক): বর্তমান সাংসদ ও সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শামসুল হক টুকু, সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আবু সাইয়িদ ও সাঁথিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন। এছাড়া রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা সরদার সোহেল মাহমুদের নামও শোনা যাচ্ছে।

পাবনা-২ (সুজানগর-বেড়ার আংশিক): বর্তমান সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য অধ্যাপক খন্দকার বজলুল হকের ভাই খন্দকার আজিজুল হক আরজু এমপি, কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও সাবেক সচিব মীর্জা আব্দুল জলিল, সাবেক সংসদ সদস্য তফিজ মাস্টারের ছেলে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ কবির, ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ইমরান সিরাজ সম্রাট, যুবলীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির রানা, সাবেক সচিব মুজিবুর রহমান, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল মতিন ও পৌর মেয়র আব্দুল ওয়াহাব।

পাবনা-৩ (চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া ও ফরিদপুর): জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কৃষিসংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ও বর্তমান এমপি মোকবুল হোসেন, সাবেক পৌর মেয়র বাকিবিল্লাহ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা আতিকুল ইসলাম আতিক, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ইঞ্জিনীয়ার আব্দুল আলিম, চাটমহর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন সাখো, জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মুক্তিযোদ্ধা আ স ম আব্দুর রহিম পাকন।

পাবনা-৪ (ঈশ্বরদী-আটঘরিয়া): বর্তমান সংসদ সদস্য ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান খান শরীফ এমপি, তার মেয়ে জেলা আওয়ামী লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদিকা মাহজেবিন শিরিন পিয়া ও তার জামাতা ঈশ্বরদী পৌর মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু, জাসদ থেকে আওয়ামী লীগে আসা সাবেক সংসদ সদস্য পাঞ্জাব আলী বিশ্বাস, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম লিটন, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী রবিউল আলম বুদু।

পাবনা-৫ (সদর): বর্তমান সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম ফারুক প্রিন্স, সদর উপজেলার চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হাসান শাহিন, কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক খ ম হাসান কবির আরিফ, জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের ভায়রা সাইদুল হক চুন্নু, দুদকের সাবেক কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু, কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগ নেতা ফজলুল হক মন্টু, জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক কামিল হোসেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম মানিক।

বগুড়া-২ (শিবগঞ্জ): কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য আকরাম হোসেন, পৌর মেয়র তৌহিদুল ইসলাম মানিক।

বগুড়া-৩ (আদমদিঘী-দুপচাঁচিয়া): আদমদিঘী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনসার আলী মৃধা, আদমদিঘী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম রাজু।

বগুড়া-৫ (শেরপুর-ধুনট): হাবিবুর রহমান এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান মজনু।

বগুড়া-৭ (গাবতলী-শাহজাহানপুর): জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ডা. মোস্তফা আলম নান্নু, জেলা কৃষক লীগের সভাপতি ইমারত আলী, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক টি জামান নিকেতা ও আসাদুর রহমান দুলু।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ (শিবগঞ্জ): বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম রাব্বানী, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, সাবেক বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এনামূল হক।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ (নাচোল-গোমস্তাপুর-ভোলাহাট): বর্তমান সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস, সাবেক এমপি জিয়াউর রহমান, যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আনোয়ারুল ইসলাম আনার, নাচোল উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের ও ভোলাহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডা. আশরাফুল আলম চুন্নু।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ (চাঁপাই সদর): বর্তমান সংসদ সদস্য আব্দুল ওদুদ বিশ্বাস, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ রুহুল আমিন ও আওয়ামী লীগ নেতা বেনজুর রহমান।

নওগাঁ-১ (সাপাহার-পোরশা ও নিয়ামতপুর): বর্তমান সংসদ সদস্য ও নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাধন চন্দ্র মজুমদার, নিয়ামতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ এনামুল হক, সাপাহার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ শামসুল আলম শাহ চৌধুরী।

নওগাঁ-২ (ধামইরহাট-পত্নীতলা): বর্তমান সংসদ সদস্য ও জাতীয় সংসদের হুইপ আলহাজ অ্যাডভোকেট শহীদুজ্জামান সরকার, শিল্পপতি আখতারুল আলম।

নওগাঁ-৩ (মহাদেবপুর-বদলগাছী): বর্তমান এমপি ছলিম উদ্দিন তরফদার সেলিম, সাবেক এমপি ড. আকরাম হোসেন চৌধুরী।

নওগাঁ-৪ (মান্দা): বর্তমান সংসদ সদস্য এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক, মান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এমদাদুল হক মোল্লা, সহ-সভাপতি ব্রহানী সুলতান গামা, সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ শেখ, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সাইদুর রহমান বকুল।

নওগাঁ-৫ (সদর): বর্তমান এমপি ও নওগাঁ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রয়াত আব্দুল জলিলের ছেলে ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন, জেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ রফিকুল ইসলাম রফিক।

নওগাঁ-৬ (রাণীনগর-আত্রাই): বর্তমান এমপি ইসরাফিল আলম, সাবেক সাংসদ ওহিদুর রহমানের ছেলে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক সুমন।

সিরাজগঞ্জ-৩ (রায়গঞ্জ-তাড়াশ): ম ম আমজাদ হোসেন মিলন এমপি, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা ও পেট্রোবাংলার সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. হোসেন মুনসুর, প্রয়াত এমপি ইছহাক হোসেন তালুকদারের ছেলে ইমন তালুকদার, কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষিবিদ সাখাওয়াত হোসেন সুইট।

সিরাজগঞ্জ-৪ (উল্লাপাড়া): প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমামের ছেলে তানভীর ইমাম, সাবেক এমপি গাজী সফিকুল ইসলাম ও নারী নেত্রী মুক্তি মির্জা।

সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি ও চৌহালী): গার্মেন্ট ব্যবসায়ী আব্দুল মজিদ মণ্ডল এমপি, সাবেক মন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, আওয়ামী লীগ নেতা মীর মোশারফ হোসেন।

সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর): বর্তমান এমপি হাসিবুর রহমান স্বপন ও সাবেক এমপি চয়ন ইসলাম মনোনয়ন চাইবেন।

টাঙ্গাইল-১ (মধুপুর-ধনবাড়ী): আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী চারজন। এরা বর্তমান সাংসদ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, ভোলা ও মধুপুর উপজেলা চেয়ারম্যান সরোয়ার আলম খান আবু, স্কয়ার হাসপাতালের পরিচালক ডা. ছানোয়ার হোসেন ও সাবেক ছাত্রনেতা অ্যাড. রেজাউল করিম।

টাঙ্গাইল-২ (গোপালপুর-ভূঞাপুর): বয়সের ভারে ন্যুব্জ সংসদ সদস্য খন্দকার আসাদুজ্জামানের ছেলে সোনালী ব্যাংকের সাবেক পরিচালক খন্দকার মশিউজ্জামান রোমেল, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক খন্দকার আশরাফুজ্জামান স্মৃতি, জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক তানভীর হাসান (ছোট মনি), কন্টিনেন্টাল কুরিয়ার সার্ভিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাসমত আলী, গোপালপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইউনুছ ইসলাম তালুকদার ঠান্ডু ও গোপালপুর উপজেলা আ’লীগের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট শামছুল আলম।

টাঙ্গাইল-৩ (ঘাটাইল): বর্তমান সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আমানুর রহমান খান রানা, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম লেবু এবং সদ্য দলে যোগদানকারী শিল্পপতি সৈয়দ আবু ইউসুফ আবদুল্লাহ তুহিন।

টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী): আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য ও মন্ত্রিত্ব হারানো রাজনীতিক আবদুল লতিফ সিদ্দিকী, তার স্ত্রী সাবেক সাংসদ বেগম লায়লা সিদ্দিকী, বর্তমান সাংসদ হাছান ইমাম খান সোহেল হাজারি, এফবিসিসিআইর পরিচালক ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা আবু নাসের, কালিহাতী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান মোজহারুল ইসলাম তালুকদার, টাঙ্গাইল বার সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. এমএ আজিজ।

টাঙ্গাইল-৫ (সদর): বর্তমান সাংসদ আলহাজ মো. ছানোয়ার হোসেন, বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খোরশেদ আলম। এছাড়া এ আসনে ১৪ দলীয় জোটের প্রার্থী হিসেবে জাপার প্রেসিডিয়াম সদস্য শিল্পপতি আবুল কাশেম মনোনয়ন চাইবেন।

টাঙ্গাইল-৬ (নাগরপুর-দেলদুয়ার): বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার আবদুল বাতেন এমপি, জেলা আ’লীগের বাণিজ্য ও শিল্প বিষয়ক সম্পাদক আহসানুল ইসলাম টিটু ও বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের সভাপতি শহিদুল ইসলাম টিটু।

টাঙ্গাইল-৭ (মির্জাপুর): বর্তমান সংসদ সদস্য আলহাজ মো. একাব্বর হোসেন, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও হাকাম ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মেজর (অব.) খন্দকার এ হাফিজ। এছাড়া উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মীর শরীফ মাহমুদ এবং উপজেলা চেয়ারম্যান মীর এনায়েত হোসেন মন্টু দলীয় মনোনয়ন চাইতে পারবেন।

টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল): সংসদ সদস্য অনুপম শাজাহান জয়, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট জোয়াহেরুল ইসলাম, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক জিএম আবদুল মালেক মিয়া ও ইঞ্জিনিয়ার আতাউল মাহমুদ।

কিশোরগঞ্জ-২ (কটিয়াদি-পাকুন্দিয়া): বর্তমান এমপি অ্যাড. মো. সোহরাব উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. এম এ আফজাল, রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদের পুত্র রাসেল আহমেদ তুহিন, সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর মোখলেছুর রহমান বাদল, পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রেনু ও আওয়ামী লীগ নেতা মঈনুজ্জামান অপু।

কিশোরগঞ্জ-৩ (তাড়াইল-করিমগঞ্জ): সাবেক এমপি ড. মিজানুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শেখ কবীর আহমেদ, করিমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক নাসিরুল ইসলাম খান আওলাদ ও ব্যবসায়ী এরশাদ উদ্দিন।

কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম): রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদের পুত্র ও বর্তমান এমপি রেজওয়ান আহমেদ তৌফিক ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. কামরুল আহসান শাহজাহান।

কিশোরগঞ্জ-৫ (নিকলী-বাজিতপুর): বর্তমান এমপি মো. আফজাল হোসেন, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অজয় কর খোকন, জেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি ফারুক আহমেদ।

কিশোরগঞ্জ-৬ (কুলিয়ারচর-ভৈরব): বর্তমান এমপি নাজমুল হাসান পাপন ও সিআইপি মো. মুছা মিয়া।

মানিকগঞ্জ-১ (দৌলতপুর-ঘিওর-শিবালয়): জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এবং বর্তমান সংসদ সদস্য সাবেক ক্রিকেটার এএম নাঈমুর রহমান দুর্জয়, যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম জাহিদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম পিপি, সাবেক সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আনোয়ারুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক আবদুর রহিম খান, আওয়ামী লীগ নেতা ও শিবালয় উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আকবর।

মানিকগঞ্জ-২ (সিঙ্গাইর-হরিরামপুর): সিঙ্গাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক দেওয়ান শফিউল আরেফিন টুটুল ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হাটিপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গোলাম মনির হোসাইন।

মানিকগঞ্জ-৩ (সদর-সাটুরিয়া): জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও বর্তমান সংসদ সদস্য এবং স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট বাদরুল ইসলাম খান বাবলু ও রাবেয়া ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা আওয়ামী লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম।

মুন্সীগঞ্জ-১ (শ্রীনগর ও সিরাজদীখান): শ্রীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ এমপি, দলের সাবেক কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক. ডা. বদিউজ্জামান ডবিস্নউ।

মুন্সীগঞ্জ-২ (লৌহজং ও টঙ্গিবাড়ী): সাগুপ্তা ইয়াসমীন এমিলি এমপি, অ্যাটর্নি জেনারেল অ্যাডভোকেট মাহবুবে আলম, টঙ্গিবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার কাজী ওয়াহিদ।

মুন্সীগঞ্জ-৩ (মুন্সীগঞ্জ সদর ও গজারিয়া): দলের কেন্দ্রীয় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. মৃণাল কান্তি দাস এমপি এবং সাবেক এমপি ও সাবেক প্রতিরক্ষা সচিব এম ইদ্রিস আলী, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এবং জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আনিসুজ্জামান আনিস।

ঢাকা-১ (দোহার ও নবাবগঞ্জ): প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও বেক্সিমকো গ্রুপের চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান, দলের সভাপতিম-লীর সদস্য আবদুল মান্নান খান ও ঢাকা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান।

ঢাকা-২ (কেরানীগঞ্জ-কামরাঙ্গীরচর): খাদ্যমন্ত্রী ও দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য অ্যাড. কামরুল ইসলাম, কেরানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ও থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহিন আহমেদ।

ঢাকা-৪ (শ্যামপুর): শ্যামপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি তোফাজ্জল হোসেন, আওয়ামী লীগ সভাপতির সাবেক ব্যক্তিগত সমন্বয়কারী ড. আওলাদ হোসেন, সংরক্ষিত আসনের এমপি সানজিদা খানম, ঢাকা মহানগর কৃষকলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুস সালাম বাবু।

ঢাকা-৫ (ডেমরা-যাত্রাবাড়ী): হাবিবুর রহমান মোল্লা এমপি, তার ছেলে ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান সজল, যাত্রাবাড়ী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী মনিরুল ইসলাম মনু ও সাধারণ সম্পাদক হারুন-অর-রশিদ মুন্না।

ঢাকা-৬ (সূত্রাপুর-কোতোয়ালি): ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, মহানগরের সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফি, সাংগঠনিক সম্পাদক হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন, ওয়ারী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী আশিকুর রহমান লাভলু, সূত্রাপুর থানার সভাপতি হাজী মো. শাহিদ।

ঢাকা-৭ (লালবাগ-চকবাজার): হাজী মোহাম্মদ সেলিম এমপি, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোস্তাফা জালাল মহিউদ্দিন, ঢাকা দক্ষিণের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোহাম্মদ আকতার হোসেন।

ঢাকা-৮ (রমনা): ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, সাবেক কমিশনার কামাল চৌধুরী, মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আশরাফ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাঈল হোসেন সম্রাট।

ঢাকা-১১ (বাড্ডা-ভাটারা): বর্তমান সংসদ সদস্য ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম রহমতউল্লাহ, বাড্ডা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ওয়ার্ড কমিশনার ওসমান গণি, থানার সহ-সভাপতি তালাল রিজভী।

ঢাকা-১২ (তেজগাঁও): স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি, যুবলীগের প্রেসডিয়াম সদস্য মুজিবুর রহমান চৌধুরী, সাবেক এমপি ডা. এইচবিএম ইকবাল।

ঢাকা-১৩ (মোহাম্মদপুর-আদাবর): দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জাহাঙ্গীর কবীর নানক, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান।

ঢাকা-১৪ (মিরপুর-শাহআলী): আসলামুল হক এমপি ও সংরক্ষিত আসনের এমপি সাবিনা আকতার তুহিন।

ঢাকা-১৫ (কাফরুল): কামাল আহমেদ মজুমদার এমপি, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক এন সাইফুল্লাহ সাইফুল, যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম জাহিদ, ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের সভাপতি মাঈনুল হোসেন খান নিখিল, সাংসদ ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লার ভাই এখলাছ উদ্দিন মোল্লা।

ঢাকা-১৬ (পল্লবী): ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লা এমপি, মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এম এ মান্নান কচি, সাংগঠনিক সম্পাদক ফকির মহিউদ্দিন।

ঢাকা-১৭ (গুলশান-ক্যান্টনমেন্ট): সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী ও সভাপতিম-লীর সদস্য কর্নেল (অব.) ফারুক খান এমপি (বঙ্গবন্ধু পরিবারের কোনো সদস্য গোপালগঞ্জ-১ আসনে নির্বাচন করলে সেক্ষেত্রে তাকে এই আসনে মনোনয়ন দেয়া হতে পারে), ঢাকা উত্তর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও সাবেক গুলশান থানার সভাপতি ওয়াকিল উদ্দিন।

ঢাকা-১৮ (উত্তরা): সাবেক মন্ত্রী ও দলের সভাপতিম-লীর সদস্য অ্যাড. সাহারা খাতুন এমপি, মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিব হাসান, দক্ষিণখান ইউপি চেয়ারম্যান ও মহানগরের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন, যুবলীগের সাবেক ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক সরদার বেলায়েত হোসেন মুকুল, হরিরামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাসেম এবং ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক মাহবুব হোসেন।

ঢাকা-১৯ (সাভার): এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. এনামূর রহমান এমপি, সাবেক এমপি তালুকদার তৌহিদ জং মুরাদ, পৌর মেয়র আব্দুল গণির ছেলে ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হাসান তুহিন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ কবির।

ঢাকা-২০ (ধামরাই): ধামরাই থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মালেক এমপি, সাবেক এমপি ও ঢাকা জেলা উত্তরের সভাপতি বেনজির আহমেদ, পৌর মেয়র গোলাম কবির, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবদুল আলীম খান সেলিম, প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-এলাহীর সাবেক এপিএস মনোয়ার হোসেন।

গাজীপুর-১ (কালিয়াকৈর): মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আ ক ম মোজাম্মেল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি অ্যাড. শফিকুল ইসলাম বাবুল।

গাজীপুর-২ (গাসিক ও ক্যান্টনমেন্ট): ক্রীড়া সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান জাহিদ আহসান রাসেল এমপি, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. আজমত উল্লাহ খান।

গাজীপুর-৩ (শ্রীপুর-সদর): অ্যাড. রহমত আলী এমপি ও তার ছেলে জামিল হাসান দুর্জোয়, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন সবুজ।

গাজীপুর-৪ (কাপাসিয়া): সাবেক প্রধানমন্ত্রী তাজ উদ্দিন আহমেদের মেয়ে সিমিন হোসেন রিমি ও তাজউদ্দিনের ভাই অ্যাড. আফসার উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা শহীদ উল্লা।

গাজীপুর-৫ (কালীগঞ্জ): মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি এমপি, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান, আবুল হাশেম খান পাঠান (নায়ক ফারুক) ।
নরসিংদী

নরসিংদী (সদর): জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি লে. কর্নেল (অব.) মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম হিরু এমপি, আমেরিকার ফ্লোরিডা আওয়ামী লীগের নেতা আইয়ুব খান মন্টু।

নরসিংদী-২ (পলাশ): কামরুল আশরাফ খান পোটন (স্বতন্ত্র এমপি), সাবেক এমপি আনোয়ারুল আশরাফ খান দিলিপ, সাবেক মন্ত্রী নজরুল ইসলাম।

নরসিংদী-৩ (শিবপুর): যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা সিরাজুল ইসলাম মোল্লা (স্বতন্ত্র এমপি), জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক সাংসদ জহিরুল হক ভূইয়া মোহন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হারুন-অর-রশিদ খান।

নরসিংদী-৪ (বেলাব-মনোহরদী): নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন এমপি, ডা. রউফ সরদার, মনোহরদী উপজেলার টানা চারবারের চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম বীরু, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি মাজহারুল ইসলাম মানিক ।

নরসিংদী-৫ (রায়পুরা): সাবেক মন্ত্রী ও দলের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য সাবেক সদস্য রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু এমপি, তার ছেলে রাজিব আহমেদ পার্থ, রাজুর ভাই সালাহ উদ্দিন আহমেদ বাচ্চু, অ্যাড. রিয়াজুল কবীর কাউছার, ব্যারিস্টার তৌফিক, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি এসএম কাইয়ূম।

নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ): বর্তমান সাংসদ ও ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবু, কেন্দ্রীয় যুবলীগের তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইকবাল পারভেজ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মমতাজ হোসেন।

নারায়ণগঞ্জ-২ (আড়াইহাজার): গাজী গ্রুপের চেয়ারম্যান গাজী গোলাম দস্তগীর এমপি, সাবেক এমপি ও সাবেক সেনা প্রধান একএম শফিউল্লাহ, রূপগঞ্জের কায়েতপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম।

নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও): সাবেক এমপি আবদুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক এম এইচ মাসুদ দুলাল।

নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ): বর্তমান এমপি একেএম শামীম ওসমান, জাতীয় শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির শ্রমিক উন্নয়ন ও কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক কাউছার আহম্মেদ পলাশ, এশিয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান হারুন অর রশিদ।

নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর ও বন্দর): সাবেক এমপি এসএম আকরাম, জাতীয় শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ, জেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুল কাদির, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহিদ মোহাম্মদ বাদল।

রাজবাড়ী-১ (সদর ও গোয়ালন্দ): বর্তমান এমপি আলহাজ কাজী কেরামত আলী, তার ভাই কাজী ইরাদত আলী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির আবদুল জব্বার, মেয়র মহাম্মদ আলী চৌধুরী।

ফরিদপুর-১ (বোয়ালমারী-মধুখালী-আলফাডাঙ্গা): বর্তমান সাংসদ ও দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান, সাবেক এমপি ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য শিল্পপতি কাজী সিরাজুল ইসলাম, বোয়ালমারী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এম এম মোশাররফ হোসেন মুশা মিয়া,ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি লিয়াকত সিকদার, আলফাডাঙ্গা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা এবং অনলাইন নিউজ পোর্টাল ঢাকা টাইমসের সম্পাদক আরিফুর রহমান দোলন, লায়ন শাখাওয়াত হোসেন।

ফরিদপুর-২ (সালথা-নগরকান্দা): বর্তমান এমপি ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, তার ছেলে নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আয়মন আকবর চৌধুরী বাবলু, নগরকান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ছাত্র নেতা অ্যাড. জামাল হোসেন মিয়া, জেলা কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক লায়েকুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা শিল্পপতি মেজর (অব.) আ ত ম হালিম, নগরকান্দা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান মো. মনিরুজ্জামান সরদার।

ফরিদপুর-৪ (ভাঙ্গা-সদরপুর-চরভদ্রাসন): দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক এমপি কাজী জাফরউল্লাহ, বর্তমান এমপি (স্বতন্ত্র) ও সম্প্রতি আওয়ামী লীগে যোগদানকৃত মুজিবুর রহমান নিক্সন চৌধুরী, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও এফবিসিসিআইয়ে সাবেক সভাপতি একে আজাদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা খন্দকার মঞ্জুর হোসেন।

গোপালগঞ্জ-১ (মুকসুদপুর ও কাশিয়ানীর একাংশ): সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী ও দলের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ফারুক খান এমপি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহেনা।

মাদারীপুর-৩ (কালকিনি ও সদর একাংশ): প্রার্থীরা হলেন বর্তমান এমপি ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ.ফ.ম. বাহাউদ্দিন নাছিম, সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেন ও আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবাহান গোলাপ।

শরীয়তপুর-১ (সদর-জাজিরা): বর্তমান সাংসদ ও কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সদস্য সদস্য ইকবাল হোসেন অপু, শরীয়তপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল হাশেম তপাদার, শরীয়তপুর পৌরসভা মেয়র রফিকুল ইসলাম কোতোয়াল, জাজিরা উপজেলা চেয়ারম্যান মোবারক আলী শিকদার।

শরীয়তপুর-২ (নড়িয়া-সখিপুর): বর্তমান সাংসদ কর্নেল (অব.) শওকত আলী, দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এ কে এম এনামুল হক শামীম।

শরীয়তপুর-৩ (ডামুড্যা-গোসাইরহাট-ভেদরগঞ্জ): প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা আবদুর রজ্জাকের ছেলে বর্তমান সাংসদ নাহিম রাজ্জাক, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি বাহাদুর বেপারী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে।

চট্টগ্রাম-১ (মিরসরাই): আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য ও মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন।

চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি): সাবেক সংসদ সদস্য রফিকুল আনোয়ারের ভাই জেলা উত্তর আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও বাণিজ্য সম্পাদক ফখরুল আনোয়ার, রফিকুল আনোয়ারের মেয়ে খাদিজাতুল আনোয়ার এবং সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এটিএম পিয়ারুল ইসলাম।

চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ): বর্তমান সংসদ সদস্য ও থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহফুজুর রহমান মৃধা, উপজেলা চেয়ারম্যান দেওয়ান মাস্টার শাহজাহান বিএ এবং থানা আওয়ামী লীগের নেতা আকরাম খান দুলাল।

চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ডু ও সিটির ৯ ও ১০ ওয়ার্ড): প্রাক্তন সিটি মেয়র মঞ্জুর আলমের ভাই আবু তাহেরের ছেলে মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য ও বর্তমান সাংসদ দিদারুল আলম। এছাড়া রয়েছেন প্রাক্তন সাংসদ এটিএম আবুল কাশেম মাস্টারের বড় ছেলে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি এসএম আল মামুন এবং কাশেম মাস্টারের ভাই শিল্পপতি নাছির উদ্দিনের ছেলে সৈয়দ মোহাম্মাদ তানভীর। গতবার তানভীরকে মনোনয়ন দেয়া হলেও তিনি নির্বাচন করেননি।

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী ও সিটির ১ ও ২ ওয়ার্ড): বর্তমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ কালাম, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য ও মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাড. ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী, প্রাক্তন জেলা উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সদস্য ইউনুস গণি চৌধুরী।

চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান): উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী।

চট্টগ্রাম-৮ (শ্রীপুর-খারনদ্বীপ ইউনিয়ন ব্যতীত বোয়ালখালী থানা ও সিটির ৩, ৪, ৫, ৬ ও ৭নং ওয়ার্ড): চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-সিডিএর চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ আবদুছ ছালাম, কুয়েতের বর্তমান রাষ্ট্রদূত ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এসএম আবুল কালাম, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোসলেম উদ্দিন আহমদ।

চট্টগ্রাম-৯ (সিটির ১৫, ১৬, ১৭, ১৮, ১৯, ২০, ২১, ২২, ২৩, ৩১, ৩২, ৩৩, ৩৪ ও ৩৫নং ওয়ার্ড): প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী ও নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম বিএসসি, তার ছেলে মুজিবুর রহমান এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ছেলে মহিবুল হাসান নওফেল।

চট্টগ্রাম-১০ (সিটির ৮, ১১, ১২, ১৩, ১৪, ২৪, ২৫ ও ২৬নং ওয়ার্ড): প্রাক্তন মন্ত্রী ও মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ডা. আফসারুল আমিন এমপি, সাবেক মেয়র ও সদ্য আওয়ামী লীগে ফিরে আসা মহানগর কমিটির সাবেক কোষাধ্যক্ষ মঞ্জুর আলম এবং মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু ও মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আলতাফ হোসেন বাচ্চু।

চট্টগ্রাম-১১ (সিটির ২৭, ২৮, ২৯, ৩০, ৩৬, ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০ ও ৪১নং ওয়ার্ড): বর্তমান সংসদ সদস্য ও নগর আওয়ামী লীগের সদস্য এম এ লতিফ এবং মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক জাতীয় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন ও মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য রোটারিয়ান মোহাম্মদ ইলিয়াস।

চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া ও আনোয়ারা উপজেলার কিছু অংশ): দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শামসুল হক চৌধুরী এমপি, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের আরেক সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, বিশিষ্ট শিল্পপতি এস আলম গ্রুপ ও একুশে টিভির চেয়ারম্যান সাইফুল আলম মাসুদ।

চট্টগ্রাম-১৩ (আনোয়ারা ও পটিয়া উপজেলার বাকি অংশ): একক প্রার্থী ভূমি প্রতিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাভেদ। তিনি আওয়ামী লীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম মেম্বার আক্তারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর বড় ছেলে।

চট্টগ্রাম-১৪ (চান্দনাইশ ও সাতকানিয়া উপজেলার কিছু অংশ): বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার আফসার আহমেদ চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান।

চট্টগ্রাম-১৫ (লোহাগাড়া ও সাতকানিয়া উপজেলার কিছু অংশ): বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সদস্য ড. আবু রেজা মোহাম্মদ নদভী, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি ও দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের প্রাক্তন সভাপতি এবং দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক শ্রম সম্পাদক আবু সুফিয়ান।

চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী): থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান এমপি, প্রয়াত সাবেক এমপি সুলতানুল কবীর চৌধুরীর বড় ছেলে জারিফ চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম সম্পাদক খোরশেদ আলম, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা সাইফুদ্দিন চৌধুরী।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-১ (নাসিরনগর): মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী অ্যাডভোকেট ছায়েদুল হক, নাসিরনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এটিএম মনিরুজ্জামান সরকার, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ফরহাদ হোসেন সংগ্রাম, কেন্দ্রীয় কৃষকলীগ নেতা এমএ করিম ও লন্ডন প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ এহসানুল হক।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ (সরাইল-আশুগঞ্জ): স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঈন উদ্দিন মঈন, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক উম্মে ফাতেমা নাজমা বেগম (শিউলী আজাদ), সরাইল উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও সাবেক অতিরিক্ত সচিব ফরহাদ রহমান মাক্কি, ঢাকার ধানমান্ডি থানা আওয়ামী লীগ নেতা কামাল আহমেদ দুলাল, আশুগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হাজী মো. ছফিউল্লাহ মিয়া, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল হান্নান রতন, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা ও অবসরপ্রাপ্ত বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য সচিব শাহজাহান আলম সাজু।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর-বিজয়নগর): একক প্রার্থী দলের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীর সাবেক একান্ত সচিব র.আ.ম. উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া): কসবা উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক এবং আইন ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী অ্যাড. আনিসুল হক এমপি, সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শাহআলম এবং যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা শ্যামল কুমার রায়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ (নবীনগর): নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য ফয়জুর রহমান বাদল, বিশিষ্ট শিল্পপতি এবাদুল করিম বুলবুল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য অ্যাডভোকেট মোরশেদ কামাল, যুবলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য ও ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা এবং দৈনিক যায়যায়কালের সম্পাদক আলামিনুল হক আলামিন, নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নিয়াজ মোহাম্মদ খাঁন, জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার জাকির আহমদ, নবীনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডাক্তার হেলাল উদ্দিন।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৬ (বাঞ্ছারামপুর): সাবেক মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ও বর্তমান সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন (অব.) এবি তাজুল ইসলাম এমপি এবং বাংলাদেশ সমবায় ব্যাংকের চেয়ারম্যান ও যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা মহিউদ্দিন মহি।

কুমিল্লা-১ (দাউদকান্দি ও মেঘনা): বর্তমান এমপি মেজর জেনারেল (অব.) সুবিদ আলি ভূইয়া, কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর, সাবেক সেনা প্রধান ইকবাল করিম ভূঁইয়া, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাদল রায়, উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক ডা. আবদুল মান্নান জয়, মেঘনা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান শফিকুল আলম মনোনয়ন চাইবেন।

কুমিল্লা-২ (হোমনা ও তিতাস): কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহাঙ্গীর আলম সরকার, হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ আবদুল মজিদ, তিতাস উপজেলা সাবেক চেয়ারম্যান পারভেজ আলম সরকার।

কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর): বর্তমান এমপি শিল্পপতি ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট রুহুল আমিন ও কুমিল্লা উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক ড. আহসানুল আলম সরকার।

কুমিল্লা-৪ (দেবীদ্বার): বর্তমান এমপি রাজী মোহাম্মদ ফখরুল, সাবেক মন্ত্রী এবিএম গোলাম মোস্তফা, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অধ্যক্ষ এম. হুমায়ুন মাহমুদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রোশন আলীম মাস্টার।

কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া): সাবেক আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু, ব্যারিস্টার সোহরাব হোসেন খান চৌধুরী, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন স্বপন।

কুমিল্লা-৬ (সদর): বর্তমান এমপি হাজী আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার, কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ও কুমিল্লা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক আলহাজ মো. ওমর ফারুক, ব্যবসায়ী আফতাব উল ইসলাম মঞ্জু, এফবিসিসিআইর পরিচালক ও কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাসুদ পারভেজ খান ইমরান।

কুমিল্লা-৭ (চান্দিনা): বর্তমান এমপি অধ্যাপক খোরশেদ আলম, খ্যাতনামা চিকিৎসক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রাণ গোপাল দত্ত, উপজেলা চেয়ারম্যান তপন বক্সী, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মনিরুল হক।

কুমিল্লা-৮ (বরুড়া ও সদর দক্ষিণের একাংশ): সাবেক এমপি নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক মিয়াজী, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম।

কুমিল্লা-৯ (লাকসাম ও মনোহরগঞ্জ): বর্তমান সাংসদ মো. তাজুল ইসলাম, এক্মিম ব্যাংকের চেয়ারম্যান, বিশিষ্ট শিল্পপতি ও বাংকার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি নজরুল ইসলাম মজুমদার হেলাল, লাকসাম উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহজালাল মজুমদার, লাকসাম পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও লাকসাম প্রেসক্লাবের সভাপতি তাবারক উল্লাহ কায়েস, আওয়ামী লীগ নেতা মাহবুবুল আলম।

কুমিল্লা-১০ (নাঙ্গলকোট উপজেলা, সদর দক্ষিণের একাংশ ও নবগঠিত লালমাই উপজেলা): পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল (লোটাস কামাল), কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক ড. ইফরান কবির চৌধুরী, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক শিল্পপতি সালাহউদ্দিন আহমেদ, নাঙ্গলকোট উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান শাহজালাল, বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান সামছুদ্দিন কালু।

কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম): কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক ও তার স্ত্রী হনুফা আক্তার রিক্তা, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু।

নোয়াখালী-১ (চাটখিল-সোনাইমুড়ী): জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য এইচএস ইব্রাহিম, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত সহকারী জাহাঙ্গীর আলম, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির।

নোয়াখালী-২ (সেনবাগ): বর্তমান সংসদ সদস্য মোরশেদ আলম ও বাংলাদেশ অর্থনীতির সমিতির সাধারণ সম্পাদক ড. জামাল উদ্দিন আহম্মেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও শিল্পপতি আতাউর রহমান ভূইয়া মানিক ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফল আহম্মেদ চৌধুরীর নাম শোনা যাচ্ছে।

নোয়াখালী-৩ (বেগমগঞ্জ): বর্তমান সংসদ সদস্য মামুনুর রশদি কিরণ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মিনহাজ আহমেদ জাবেদ, চৌমুহনী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র আক্তার হোসেন ফয়সল ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এটিএম এনায়েত উল্লাহ।

নোয়াখালী-৬ (হাতিয়া): বর্তমান সংসদ সদস্য আয়েশা ফেরদৌস, হাতিয়া জনকল্যাণ সমিতির সভাপতি শিল্পপতি মাহমুদ আলী রাতুল ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক ওয়ালি উল্লা।

লক্ষীপুর-১: জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শফিকুল ইসলাম, আনেয়ার খান মেডিকেল কলেজের মালিক ও রামগঞ্জ উপজেলা সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির আহ্বায়ক আনোয়ার খান, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাড. শফিক মাহমুদ পিন্টু, রামগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহজাহান কন্ট্রাক্টর, আওয়ামী লীগে কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক মমিন পাটোয়ারী।

লক্ষ্মীপুর-২: আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক সাবেক এমপি হারুন অর রশিদ, কুয়েত আওয়ামী লীগের কাজী শহিদুল ইসলাম পাপুল, স্বাচিপ নেতা ডা. জগলুল আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগে সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নূর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ আলী খোকন, কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তোফায়েল আহমেদ, কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক এএস জসিম উদ্দিন।

লক্ষ্মীপুর-৩: বর্তমান এমপি একেএম শাহজাহান কামাল, সদর উপজেলার চেয়ারম্যান ও জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক একেএম সালউদ্দিন টিপু, ধানম-ি থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুস সাত্তার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক টিঙ্কু, সজীব করপোরেশনের চেয়ারম্যান এমএ হাশেম।

লক্ষ্মীপুর-৪: আব্দুল্লাহ আল মামুন এমপি ও দলের কেন্দ্রীয় কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলি।

চাঁদপুর-১ (কচুয়া): সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর, ইতিহাসবিদ ড. মুনতাসির মামুন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান মো. গোলাম হোসেন।

চাঁদপুর-২ (মতলব উত্তর ও মতলব দক্ষিণ): দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী (মায়া), সাবেক এমপি এয়ার ভাইস মার্শাল এম রফিকুল ইসলাম, মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. রুহুল আমিন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য সাজেদুল হাসান চৌধুরী দিপু।

চাঁদপুর-৩ (চাঁদপুর সদর ও হাইমচর): সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ডা. দীপু মনি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য অ্যাড. নজিবুল্লাহ হিরু, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আহছান উল্লাহ আখন্দ।

চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ): ড. মো. শামছুল হক ভূঁইয়া এমপি, জাতীয় প্রেসক্লাব সভাপতি মুহম্মদ শফিকুর রহমান, জেলা বিএমএর সাবেক সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. হারুন-অর-রশিদ (সাগর)।

চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি): সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম (বীর উত্তম) সংরক্ষিত মহিলা সংসদ সদস্য অ্যাড. নূরজাহান বেগম মুক্তা।

ফেনী-১ (ছাগলনাইয়া, পরশুরাম ও ফুলগাজী): জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খায়রুল বাশার তপন, শিল্পপতি কনকা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও এনসিসি ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান নুরু নেওয়াজ সেলিম ও পরিবহন ব্যবসায়ী নেতা ও এনা গ্রুপের মালিক খন্দকার এনায়েতুর রহমান।

ফেনী-২ (ফেনী সদর): জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারী এমপি ও তার স্ত্রী নূর জাহান বেগম নাসরিন, প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী।

ফেনী-৩ (দাগনভূঞা সোনাগাজী): বর্তমান স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য হাজী রহিম উল্যাহ, যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য আবুল বাশার, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা জহিরুল আলম লিপটন, যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতা মঞ্জুরুল আলম শাহিন, ফেনী জেলা যুবলীগের সভাপতি দিদারুল কবির রতন।

কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া): এ আসন থেকে সম্ভাব্য প্রার্থী আলোচনায় রয়েছেন সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চট্টগ্রাম বিভাগীয় আহবাহক ও জেলা আওয়ামী লীগের মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক ড. আশরাফুল ইসলাম সজিব, বর্তমান চকরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সালাউদ্দিন আহমদ সিআইপি, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রেজাউল করিম।

কক্সবাজার-২ (মহেশখালী-কুতুবদিয়া): এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের তালিকায় রয়েছেন বর্তমান সাংসদ আশেক উল্লাহ রফিক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. সিরাজুল মোস্তফা, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা ড. আনছারুল করিম ও সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা ওসমান গণি।

কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু): এ আসন থেকে সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছে বর্তমান সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভানেত্রী কানিজ ফাতেমা আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনিন সরওয়ার কাবেরী, রামু উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সোহেল সরওয়ার কাজল, কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষ (কউক) চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল (অব.) ফোরকান আহমদ ও জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ইশতিয়াক আহমেদ জয়।

কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ): এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন বর্তমান সাংসদ আব্দুর রহমান বদি, সাবেক সাংসদ ও টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলী, জেলা পরিষদ সদস্য ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান শফিক মিয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহ্ আলম ওরফে রাজা শাহ আলম ও উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হামিদুল হক চৌধুরী।

খাগড়াছড়ি: জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি, ভারত প্রত্যাগত শরণার্থী পুনর্বাসন বিষয়ক টাক্সফোর্স চেয়ারম্যান ও সাবেক জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জতিন্দ্র লাল ত্রিপুরা, পানছড়ি কলেজের প্রিন্সিপাল সমীর দত্ত চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক সচিব নববিক্রম কিশোর ত্রিপুরার বড় ভাই মুক্তিযোদ্ধা রণবিক্রম ত্রিপুরা।

খুলনা-১ (বটিয়াঘাটা ও দাকোপ উপজেলা): বর্তমান এমপি পঞ্চানন বিশ্বাস, সাবেক এমপি ননী গোপাল মন্ডল, খুলনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হারুনুর রশীদ, এবং দাকোপ উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ আবুল হোসেন।

খুলনা-৪ (রূপসা, তেরখাদা ও দিঘলিয়া): সাবেক হুইপ, বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মোস্তফা রশিদী সুজা, প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. মশিউর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য মোল্লা জালাল উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান জামাল।

খুলনা-৫ (ডুমুরিয়া ও ফুলতলা): মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নারায়ণচন্দ্র চন্দ ও অর্থনীতিবিদ ড. মাহবুব উল ইসলাম।

খুলনা-৬ (কয়রা ও পাইকগাছা): সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুরুল হক, সাবেক সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সোহরাব আলী সানা ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তারুজ্জামান বাবু।

বাগেরহাট-২ (সদর ও কচুয়া): বাগেরহাট জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শওকত আলী বাদশা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান টুকু।

বাগেরহাট-৪ (মোরেলগঞ্জ ও শরণখোলা): জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য আমিরুল ইসলাম মিলন।

যশোর-১ (শার্শা): জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দিন, জেলার সাংগঠনিক সম্পাদক ও বেনাপোল পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম লিটন এবং পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক আবদুল মাবুদ।

যশোর-২ (ঝিকরগাছা-চৌগাছা): বর্তমান সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক অ্যাড. মনিরুল ইসলাম, সাবেক বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী রফিকুল ইসলাম, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা ড. আকতারুল কবীর, মেজর জেনারেল (অব.) ডা. নাসির উদ্দীন, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা আহসানুল হক, চৌগাছা উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা এসএম হাবিব।

যশোর-৩ (সদর): জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও বর্তমান সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহীন চাকলাদার।

যশোর-৪ (অভয়নগর-বাঘারপাড়া): বাঘারপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান সংসদ সদস্য রণজিৎ কুমার রায়, সাবেক হুইপ শেখ আবদুল ওহাব, অভয়নগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও নওয়াপাড়ার সাবেক পৌর মেয়র এনামুল হক বাবুল, জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য নাজমুল ইসলাম কাজল।

যশোর-৫ (মনিরামপুর): দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য, তার ভাই বর্তমান সংসদ সদস্য স্বপন কুমার ভট্টাচার্য, সাবেক সংসদ সদস্য খান টিপু সুলতান, মনিরামপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আমজাদ হোসেন লাভলু।

যশোর-৬ (কেশবপুর): জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক, কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আমির হোসেন,

ঝিনাইদহ-১ (শৈলকূপা): জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মৎস ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী আবদুল হাই, শৈলকূপা উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক নায়েব আলী জোয়ারদার, দলের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য কামরুজ্জামানের মেয়ে ও দলের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য পারভীন জামান কল্পনা।

ঝিনাইদহ-২ (হরিনাকুণ্ডু ও সদরের কিছু অংশ): সাবেক সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম অপু, নূরে আলম সিদ্দিকীর ছেলে ও সদ্য আওয়ামী লীগে যোগদানকারী তাহজীব আলম সিদ্দিকী সমি এমপি।

ঝিনাইদহ-৩ (মহেশপুর ও কোটচাঁদপুর): নবী নেওয়াজ এমপি, সাবেক এমপি শফিকুল আজম খান চঞ্চল ও সাজ্জাতুজ জুম্মা চৌধুরী।

ঝিনাইদহ-৪ (কালীগঞ্জ ও সদরের বাকি অংশ): আনোয়ারুল আজিম আনার এমপি, থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সাংসদ আবদুল মান্নান, সাবেক পৌর মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান বিজু।

মেহেরপুর-১ (সদর ও মুজিবনগর): জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফরহাদ হোসেন এমপি, সাবেক এমপি জয়নাল আবেদীন, সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক অ্যাড. মিয়াজান আলী, সাবেক এমপি প্রফেসর আবদুল মান্নান, আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা উপ কমিটির সদস্য ইমন আহমেদ ।

মেহেরপুর-২ (গাংনী): মকবুল হোসেন এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল খালেক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহীদুজ্জামান খোকন।

মাগুরা-১ (শ্রীপুর ও সদরের কিছু অংশ): জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মেজর (অব.) আবদুল ওয়াহাব এমপি, সংরক্ষিত আসনের এমপি কামরুল লায়লা জলি, প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব অ্যাড. সাইফুজ্জামান শিখর, সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাড. সৈয়দ শরিফুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগে নেতা কুতুবুল্লাহ কুটি।

মাগুরা-২ (মহম্মদপুর ও সদরের বাকি অংশ): যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী এবং জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য অ্যাড. বীরেন সিকদার এমপি, প্রধানমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব অ্যাড. সাইফুজ্জামান শিখরের বড় ভাই অ্যাড. শফিকুজ্জামান বাচ্চু, জেলা পিপি অ্যাড. কামাল হোসেন, মহম্মদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আবদুল মান্নান, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এবং জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি বাসুদেব কুন্ডু।

সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া): সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি প্রকৌশলী মুজিবুর রহমান, সাবেক এমএলএ শহীদ স ম আলাউদ্দিনের মেয়ে ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক লায়লা পারভীন সেজুতি, তালা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ নুরুল হক, তালা উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ঘোষ সনৎ কুমার, সাবেক এমপি ও সাবেক কলারোয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বিএম নজরুল ইসলাম, কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ফিরোজ আহমেদ স্বপন।

সাতক্ষীরা-২ (সাতক্ষীরা সদর): জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি মীর মোস্তাক আহমেদ রবি এমপি, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এসএম শওকত হোসেন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুজ্জামান বাবু, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম।

সাতক্ষীরা-৩ (দেবহাটা, আশাশুনি ও কালীগঞ্জের চারটি ইউনিয়ন): সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও দলের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য এবং জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডা. আ ফ ম রুহুল হক এমপি, নর্দান ইউনিভার্সিটির ভিসি প্রফেসর ড. ইউসুফ আবদুল্লাহ, সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুনসুর আহমেদ, উপজেলা চেয়ারম্যান ও আশাশুনি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এবিএম মোস্তাকিম।

সাতক্ষীরা-৪ (শ্যামনগর ও কালীগঞ্জের আটটি ইউনিয়ন): শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এসএম জগলুল হায়দার এমপি, শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আতাউল হক দোলন, শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি শফিউল আযম লেলিন, কালিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সাঈদ মেহেদী।

নড়াইল-১ (কালিয়া ও সদরের কিছু অংশ): বর্তমান সংসদ সদস্য কবীরুল হক মুক্তি এমপি, সংরক্ষিত নারী এমপি এ্যাড. ফজিলাতুন্নেসা বাপ্পি, কালিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এমদাদুল হক মোল্লা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. সুবাস চন্দ্র বোস।

নড়াইল-২ (লোহাগড়া ও সদরের বাকি অংশ): জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজামুদ্দিন খান নিলু, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সোহরাব হোসেন বিশ্বাস, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আশিকুর রহমান বাপ্পি, সাবেক জিপি অ্যাড সিদ্দিক আহমেদ, সাবেক সাংসদ ব্রিগে.(অব.) এস কে আবু বাকের, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. সুবাস চন্দ্র বোস, কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক রাশিদুল বাশার ডলার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও আওয়ামী লীগ নেতা হাবিবুর রহমান তাপস, কর্নেল (অব.) হাসান ইকবাল, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আইয়ুব হোসেন।

কুষ্টিয়া-১ (দৌলতপুর): দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফের বড় ভাই রশিদুল আলম, থানা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রেজাউল হক চৌধুরী এমপি, সাবেক এমপি আসাদ উদ্দিন আহমেদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্পেশাল পিপি শরিফ উদ্দিন রিমন, জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক রাশেদুল ইসলাম বিপ্লব।
কুষ্টিয়া-২ (ভেড়ামারা ও মিরপুর): মিরপুর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন।

কুষ্টিয়া-৪ (কুমারখালী ও খোকশা): বর্তমান এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আবদুর রউফ, জেলা সভাপতি ও খোকসা উপজেলা চেয়ারম্যান সদর উদ্দিন খান, প্রয়াত সাবেক এমপি আবুল হোসেন তরুণের স্ত্রী ও সাবেক এমপি সুলতানা তরুণ, জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসন ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাহিদ হোসনে জাফর।

চুয়াডাঙ্গা-১ (আলমডাঙ্গা ও চুয়াডাঙ্গা সদরের কিছু অংশ): জাতীয় সংসদের হুইপ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি, জেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় যুবলীগের সদস্য শামসুল আবেদীন খোকন, পৌর মেয়র ও যুবলীগ নেতা ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ও স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের প্রফেসর ডা. মাহবুব হোসেন মেহেদী।

চুয়াডাঙ্গা-২ (দামুড়হুদা, জীবননগর ও সদরের বাকি অংশ): জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প-বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আলী আজগার টগর এমপি, জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক ও দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান মনজু, চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগ সদস্য নজরুল মল্লিক।

[বাকী ১০০ আসনে মনোনয়নের প্রার্থী তালিকা শিগগির প্রকাশিত হবে।]

Previous
Next

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

>
Facebook