Skip to Content

Tuesday, October 16th, 2018
তাঁতী লীগ কেন্দ্রীয় নেতাদের নামে মামলা

তাঁতী লীগ কেন্দ্রীয় নেতাদের নামে মামলা

Be First!

রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে তাঁতী লীগ নেতাকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠেছে তাঁতী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি সাধনা দাস গুপ্তাসহ কয়েকজন নেতার নামে। এ অভিযোগে ঢাকার ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি পিটিশন মামলা দায়ের করেন ভূক্তভোগী ঢাকা জেলা তাঁতী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এম এ হালিম ঢালি। পিটিশন মামলা নং ৫৩/২০১৮।

তিনি পিটিশনে অভিযোগ করেন, রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে তাঁতী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির কার্যকরী সভাপতি সাধনা দাস গুপ্তার নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি এম জি মোস্তফা, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক নূর এ খোদা মঞ্জু, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আব্দুল আলিম মিলন এছাড়াও শ্যামল, আলী খান, দুলাল হোসেন ও বিপ্লব নামের কতিপয় সন্ত্রাসী আমাকে হত্যা করে তার দায় চাপাতে চেয়েচিল তাঁতী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার শওকত আলী, সিনিয়র সহ-সভাপতি জাহাঙ্গির বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক খগেন্দ্র চন্দ্র দেবনাথ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নেছার উদ্দিন, দপ্তর সম্পাদক রফিকুল ইসলাম তালুকদার, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ তাঁতী লীগের সভাপতি আবু সুফিয়ান, সাধারণ সম্পাদক মো. মোজাহারুল ইসলাম সোহেল ও মহানগর উত্তর তাঁতী লীগের সভাপতি আব্দুল হামিদের ওপর।

ভূক্তভোগী এম এ হালিম ঢালি জানান, তাঁতী লীগের বর্তমান কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতৃবৃন্দের সাথে কার্যকরী সভাপতি সাধনা দাস গুপ্তাসহ কয়েকজন নেতার বনিবনা হয় না। তাই তারা সুকৌশলে কেন্দ্রীয় ও মহানগরের শীর্ষ নেতৃবৃন্দকে ফাঁসাতে আমাকে হত্যার পরিকল্পনা করতে থাকে। সাধনা দাস গুপ্তার নেতৃত্বে কতিপয় সন্ত্রাসী আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র করে আসছে। তাদের লেলিয়ে দেয়া সন্ত্রাসীরা সবসময় আমার গতিবিধি লক্ষ্য করতে থাকলে আমার সন্দেহ হয়। আর তখনই আমি কৌশলে খবর নিতে থাকি। একপর্যায়ে জানতে পারি যে, ওরা আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে কয়েক জায়গায় গোপন মিটিং করছে। এবং আমার গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছে। তাদের এই পরিকল্পনার কথা জানতে পেরে আমি ঢাকার ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি পিটিশন দায়ের করি এবং লিখিত অভিযোগের মাধ্যমে তাঁতী লীগ সভাপতি সাধারণ সম্পাদককে অবহিত করি। পিটিশন মামলা দায়েরের পর থেকে সাধনার লেলিয়ে দেয়া সন্ত্রাসীরা আমাকে বিভিন্নভাবে হত্যার হুমকি দিয়ে আসছে। মামলা প্রত্যাহার না করলে আমিসহ আমার পুরো পরিবারকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে তারা। এমতাবস্থায় আমি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমি ও আমার পরিবারের নিরাপত্তায় উপরোক্ত প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

অভিযোগ অস্বীকার করে সাধনা দাস গুপ্তা বলেন, ঢালি তাঁতী লীগের কোন কমিটিতে ছিল না। তাঁতী লীগে বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি করতে সকল নেতার বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তাঁতী লীগ সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার শওকত আলী বলেন, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Previous
Next

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

>
Facebook